No icon

শিকার হচ্ছে মা ইলিশ

পদ্মা ও যমুনা নদীতে চলছে অভিযান

কালজয়ী ডেস্ক:: মানিকগঞ্জের পদ্মা ও যমুনা নদীতে একদিকে চলছে অভিযান, অন্যদিকে চুক্তিতে শিকার হচ্ছে মা ইলিশ। স্থানীয় প্রভাবশালীদের মদদ আর ইলিশ শিকারিদের কৌশলের কাছে মার খাচ্ছে অভিযান। মানিকগঞ্জের দৌলতপুর, শিবালয় ও হরিরামপুর উপজেলার পাশ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে যমুনা ও পদ্মা নদী। দৌলতপুর থেকে হরিরামপুর পর্যন্ত প্রায় ৬০ বর্গকিলোমিটার এলাকায় বর্তমানে মা ইলিশের বিচরণক্ষেত্র। জাল ফেললেই ওঠে মা ইলিশ। এই তিনটি উপজেলার পদ্মা যমুনা নদীতে রয়েছে অসংখ্য চর। মূলত এই চর থেকে নিষেধাজ্ঞার মধ্যে ইলিশ ধরার নৌকা নামছে নদীতে। একটি হিসাবে দেখা গেছে, বর্তমানে ৫০০ থেকে ৭০০ নৌকা ইলিশ শিকারে জড়িত। আর এদের মদদ দিচ্ছেন স্থানীয় প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতা, জনপ্রতিনিধিরা। শিবালয় উপজেলার ক্ষমতাসীন দলের এক নেতা চর শিবালয়ের ইলিশ শিকারি হোসেন, আদম, আফসার, বাবুল, ইউসুফ আইনুদ্দিনসহ ২০ জনের সঙ্গে একটি চুক্তি করে। চার লাখ টাকার বিনিময়ে তাদের নির্বিঘ্নে ইলিশ ধরার অনুমতি দেওয়া হয়। চুক্তি অনুযায়ী নদীতে অভিযান পরিচালনার আগেই ইলিশ শিকারিদের মোবাইল ফোনে সতর্ক করা হয়। আরিচা ঘাট থেকে ভাড়ায় স্পিডবোটে অভিযান পরিচালিত হয়। এ কারণে ওই নেতা আগেই অভিযানের খবর পেয়ে যায়। এ ছাড়া ধরা পড়লেও ছোটখাটো জরিমানার মাধ্যমে ছেড়ে দেওয়ার ব্যবস্থারও আশ্বাস দেওয়া হয়। 

স্থানীয় লোকজন জানায়, গত মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে আরিচা ঘাটে ডাকবাংলোতে বসে  চার লাখ টাকা চুক্তির দুই লাখ টাকা লেনদেন হয়েছে। ওই চুক্তি এবং টাকা লেনদেনের সময় এক শ্রমিক নেতা ও এক ছাত্র নেতা উপস্থিত ছিলেন।মধ্যনগর চরের ৩০ জন ইলিশ শিকারির সঙ্গে প্রায় একই ধরনের চুক্তি হয়েছে শিবালয় উপজেলার এক নেতার সঙ্গে। চুক্তি অনুযায়ী প্রতিদিন প্রতিটি নৌকা থেকে এক হাজার টাকা দেবে ওই নেতাকে। বিনিময়ে সতর্ক করে দেওয়া এবং হঠাৎ ধরা পড়ে গেলেও কম সাজায় ছাড়িয়ে আনবে প্রভাব খাটিয়ে।আনুলিয়া চরের ৩০ জন ইলিশ শিকারির সঙ্গে চুক্তি হয়েছে এক পুলিশ সদস্যের ভাতিজা বাবুল ফকিরের। তার সঙ্গেও একই ধরনের চুক্তি হয়েছে। এই পুলিশ সদস্যের আরেক ভাতিজা শামিম ফকিরের সঙ্গে ২৫ ইলিশ শিকারির চুক্তি হয়েছে।

এদিকে দৌলতপুর উপজেলার বাঁচামারা, বাঘুটিয়া ও চরকাটারি ইউনিয়নের তিনজন জনপ্রতিনিধির মদদে চলছে ইলিশ শিকার। তাদের মোটা অঙ্কের চাঁদা দিয়ে ইলিশ শিকারিরা নদীতে নৌকা নামাচ্ছে। দুর্গম এই অঞ্চলে খোলামেলাভাবে ইলিশ শিকার চলছে। চরকাটারি ইউনিয়নে বাড়ি একজন মৎস্য কর্মকর্তাও নির্বিঘ্নে ইলিশ ধরার আশ্বাস দিয়ে মোটা অঙ্কের চাঁদা আদায় করেছেন। বিষয়টি এলাকায় বহুল আলোচিত এবং ওপেন সিক্রেট (সবাই জানে, কেউ বলে না)। এদিকে নিষেধাজ্ঞার মধ্যে বরফকলগুলো বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত হলেও গোপনে বরফ উৎপাদন করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে একজন নেতার মদদ আছে বলে জানা গেছে। ওই নেতা প্রকাশ্যে বরফকল বন্ধ রাখার বিরোধিতা করেছিলেন। গোপনে বরফ উৎপাদন হওয়ায় ইলিশ সংরক্ষণে সুবিধা পাচ্ছে শিকারিরা।

Comment As:

Comment (0)